আজ আমরা এমন একটি বিষয় সর্ম্পকে জানবো যা  আমাদের কম্পিউটার ব্যবহার কে অনেকটা সহজ ও মজার করে তুলবে। আমরা সবাই কম্পিউটারে অনেক কাজ করে থাকি। মাঝে মাঝে কিছু কিছু ছোটখাটো কাজ করতে আমাদের অনেক সময় লেগে যায় এবং আমাদেরকে অনেক কিছু সমস্যা বা বিরক্তির মুখে ফেলে দেয়, কিন্তু একটি ছোট্ট সফটওয়্যার সেই কাজগুলোকে খুব সহজ করে দিতে পারে, পারে আমাদের সময় বাঁচাতে এবং বিরক্তিকর অভিজ্ঞতা থেকে মুক্তি দিতে। 

আজ আমরা সেই সফটওয়্যারটি সর্ম্পকে জানবো, যার নাম জিপ ফাইল (ZIP file) এবং এটি কীভাবে ব্যবহার করা যায় সে  সর্ম্পকে সংক্ষপ্তি আলোচনা করব।

জিপ ফাইলটি আসলে কি?

এটি একটি সফটওয়্যার, যার বাংলা অর্থ হল সংকুচিত করা। এর মাধ্যমে আমরা একাধিক ফাইল ও ফোল্ডারকে একত্র করে ১ টি ফোল্ডারে রাখতে পারি।

কিভাবে আমরা জিপ ফাইলটির মাধ্যমে অনেক বড় কাজকে ছোট করতে পারি সেটা দেখব।

জিপ ফাইলটি আমাদের বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় ই-মেইল এর ক্ষেত্রে। আমরা ই-মেইল এ অনেক সময় অনেক ফাইল ট্রান্সফার করে থাকি, সে ক্ষেত্রে আমাদের যে রকম আপলোড করতে সমস্যা হয় তেমনি সেই ফাইগুলো ডাউনলোড করতেও অনেক সমস্যার মুখমুখি করতে হয় এবং সময়ও অনেক নষ্ট হয়।আবার অনেক ক্ষেত্রে ফেসবুক এ আমরা ১৫ মেগাবাইট এর বেশি সাইজের ফাইল ট্রান্সফার করতে পারি না।  কিন্তু যদি আমরা এসব ক্ষেত্রে জিপ ফাইলটি ব্যবহার করে থাকি তাহলে আমরা খুব সহজ ও দ্রুত ভাবে কাজটি সম্পন্ন করতে পারি এবং বিশাল ঝামেলা থেকে বেঁচে যেতে পারি।

এছাড়া জিপ ফাইলটির অন্যতম সুবিধা হচ্ছে, আমরা যদি গেইম বা সফটওয়্যার ফাইলে রেখে দেই তাহলে সফটওয়্যগুলোতে ভাইরাস আক্রমনের সুযোগ থাকে। কিন্তু আমরা যদি গেইম বা সফটওয়্যারগুলো জিপ  করে রেখে দেই তাহলে ভাইরাস আক্রমনের সুযোগ থাকেনা। তাই অনেক ক্ষেত্রে এটি আমাদের নিরাপদ রাখে।

আর যেহেতু জিপ ফাইল আপনার ফাইল গুলোকে কমপ্রেস করে তাই এটি আপনার হার্ড ড্রাইভ এ অপেক্ষাকৃত কম জায়গা নেয় এবং স্বাভাবিক ভাবেই অপেক্ষাকৃত কম সময় নেয় ট্রান্সফার এর ক্ষেত্রে।

আপনি Windows 10 এ directly  File Explorer থেকে ফাইল জিপ করতে পারবেন কোন third-party tools এর ব্যবহার ছাড়াই।

কীভাবে ফাইল জিপ করবেন……

 

  • যেসব ফাইল আপনি জিপ করতে চান সেগুলো সিলেক্ট করুন।
  • রাইট বাটনে ক্লিক করুন , এবং নিচের ছবির মতন Send to থেকে select Compressed (zipped) folder এ ক্লিক করুন।

 

 

 

এরপর ফাইলটির শুবিধামত একটি নাম দিন এবং enter প্রেস করুন।

ব্যাস , আপনার ফাইল এখন zipped! 

 

 

এছাড়াও আপনি আপনার রিবন মেনু থেকে ফাইল সিলেক্ট করে নিচের ছবির মতন share অপশন এ ক্লিক করেও ফাইল জিপ করতে পারেন। 

 

এছাড়া আপনি আগে থেকে তৈরি করা কোন জিপ ফাইলে নিচের ছবির মত ড্রাগ করেও ফাইল জিপ করতে পারেন। 

 

এই তো গেলো ফাইল জিপ করার পদ্ধতি সমূহ।

এবার আসি কীভাবে ফাইল আনজিপ করবেন সে বিষয়েঃ

প্রথমে একটু জেনে নেই কেন আমাদের ফাইল জিপ করার প্রয়োজন হয়। জিপ ফাইল হল এমন একটি একক ফাইল যা এক বা একাধিক সংকুচিত ফাইল ধারণ করে। জিপ ফাইলের সাথে সম্পর্কিত ফাইলগুলি একসঙ্গে রাখার জন্য  এবং ফাইলগুলিকে ছোট করার জন্য মূলত জিপ করা হয়। ফাইলগুলিকে কমপ্রেস করে তোলার ফলে ইমেল বা ওয়েবের মাধ্যমে শেয়ার করা সহজ এবং দ্রুত হয়।

এখন এই একত্রে থাকা ZIPPED ফাইল থেকে আপনি যদি আলাদা আলাদা ফাইল আগের মত ফিরে পেতে চান তবে আপনার জিপ ফাইল আনজিপ করার দরকার হবে।

আনজিপ করার জন্য নিচের পদক্ষেপ অনুসরন করুনঃ

একটি সিঙ্গেল ফাইল বা ফোল্ডার আনজিপ করার জন্য, জিপড ফোল্ডারটি ডাবল ক্লিক করে খুলুন, তারপর ফাইল বা ফোল্ডার যেটিকে আপনি আনজিপ করতে চান সেটি  zipped ফোল্ডার থেকে ড্রাগ করে একটি নতুন ফাঁকা স্থানে নিয়ে যান। আনজিপ হয়ে যাবে।

zipped ফোল্ডারের সমস্ত ফাইল আনজিপ করতে, ফোল্ডারটি সিলেক্ট করে ডান-ক্লিক করুন select করুন Extract All  দেখবেন আলাদা একটি ফোল্ডারে আনজিপ হয়ে গেছে।

** অথবা আপনি বিভিন্ন third-party tools ব্যবহার করেও এই কাজটি করতে পারেন।

আজ এ পর্যন্তই। ভুল-ভ্রান্তি থাকলে অবশ্যই গঠনমূলক সমালোচনা ও সংশোধনী আশা করছি।

আশা করি এই লিখাটি টি থেকে আপনি উপকৃত হয়েছেন।

এরকম আরও তথ্য পেতে  “শখের স্কুলের” সাথেই থাকুন।

লাইক দিন “শখের স্কুলের”  ফেসবুক পেজে

জয়েন করুন“শখের স্কুলের”  ফেসবুক গ্রুপে

সাবস্ক্রাইব করুন “শখের স্কুলের”  ইউটিউব চ্যানেল

টিউনারকে ফলো করুন>> 

অসংখ্য ধন্যবাদ।

জ্ঞান ভাগাভাগিতে কোনো কার্পণ্য নয়! বাংলা ভাষার কনটেন্ট সমৃদ্ধ করার এই উদ্যোগকে উৎসাহিত করতে শেয়ার করুন। 

 

Similar Posts:

    None Found

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.