#প্রিন্টার_শেয়ারিং_সিস্টেমঃ          আজকে চলেন একটা পুরোনো বিষয় নিয়ে ঘাটাঘাটি করা যাক। সবাই জানে তারপরও আলোচনা করা আর কি। আজকাল জ্ঞান বিতরণে এক ধরণের বড়ত্ব ভাব চলে আসে, বেশ লাগে ভাবটা। তাই অতিক্ষুদ্র জ্ঞানের যতটুকু পারি বিতরণ করে বেড়াই। ভাবখানা এমন যে, আহ!! আমি বহুত কিছু জানি, একটা অহং অহং ভাব, বুঝলেন কি না বিষয়টা।

যা হোক, আজকে যে বিষয়টা নিয়ে কথা বলব তা হচ্ছে প্রিন্টার শেয়ারিং পদ্ধতি। আমাদের অনেকেই আমরা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জব করি। দেশের প্রায় সব প্রতিষ্ঠানই এখন কমবেশি ডিজিটালাইজড। সবাই চায় প্রযুক্তির ব্যবহার আবার সাথে সাথে কম খরচও। তাই ভাবে, কেমন করে কম ডিভাইস ব্যবহার করে বেশি কাজ করা যায়। তারই একটা পার্ট হচ্ছে প্রিন্টার শেয়ারিং।

আজকাল তো সব কিছুই শেয়ারে হচ্ছে খরচা বাঁচানোর জন্য। বাসা শেয়ার, ওয়াইফাই বিল শেয়ার, মোবাইলের চার্জার শেয়ার, এমনকি আমি তো কখনো দুপুরে বাইরে খেতে গেলেও এক বাটি গরুর গোশত দুই বন্ধুতে শেয়ার করে খাই। খরচা বাঁচে, পেট ভরার কাজটাও হয়।তো সবই যখন শেয়ার হচ্ছে, প্রিন্টারই বা কেন বাদ যাবে?

অপ্রাসঙ্গিক আর ফালতু কথা বেশি হয়ে যাচ্ছে। কাজের কথায় যাওয়া যাক।
ধরুন আপনি অফিসে যে কক্ষটাতে কাজ করছেন সেখানে দুটি কম্পিউটারের সাথে দুটি প্রিন্টার।কম্পিউটার গুলো সব একটি নেটওয়ার্কে যুক্ত। অনায়াসে আরামসে প্রিন্ট দিচ্ছেন। হটাত গেল আপনার প্রিন্টারটা নষ্ট হয়ে। এদিকে জরুরি কিছু কাগজ প্রিন্ট তো না দিলেই নয়।এই মূহুর্তে নতুন প্রিন্টারও কেনা যাবে না,বাড়তি খরচা। আবার পাশের কলিগও জরুরি কাজ করছেন তাই আপনাকে তার কম্পিউটারটা এই মূহুর্তে ছেড়ে দিতে পারছেন না। এমতাবস্থায় যেটা করা যায় সেটা হচ্ছে পাশের কলিগের প্রিন্টারটা শেয়ার করে নেয়া।সেটাই আজকে দেখব আমরা।

এই পুরো কার্যক্রমে কয়েকটি ধাপ আমরা অনুসরণ করব  (ফেসবুকে আমাকে ফলো করুন) ।কিছু ধাপ পাশের কলিগের পিসিতে, কিছু ধাপ আপনার পিসিতে।

পাশের কলিগের পিসিতে যা করবেন:

• প্রথমে পাশের জনের কম্পিউটারের আইপি এড্রেসটা জেনে নিন।
• পাশের কম্পিউটারের ইউজার এবং পাসওয়ার্ড আছে কি না দেখে নিন।
• যদি ইউজার-পাসওয়ার্ড থাকে তো ভাল, না হলে একটা ইউজার ক্রিয়েট করে নিন, পাসওয়ার্ড সহ।
• এবার তার পিসির স্টার্ট বাটন(উইন্ডোজ বাটন)চেপে Printer & Fax অপশনে যান। তার প্রিন্টারটির আইকনে রাইট বাটন ক্লিক করেন।
• এবার সেখান থেকে Printer Properties এ যান। একটি উইন্ডো ওপেন হবে। সেখানে দেখবেন উপরের দিকের দ্বিতীয় ট্যাবটি আছে Sharing নামে। এই ট্যাবে ক্লিক করেন।
• এবার Share this printer অপশনের বাম পাশে রেডিও বাটনটি চেক দিয়ে দিন।
• এবার Apply & Ok করেন। ব্যাস, পাশের জনের কম্পিউটারে আপনার কাজ শেষ।

আপনার কম্পিউটারের কাজ।

• এবার আপনার কম্পিউটারের কী-বোর্ড থেকে উইন্ডোজ বাটন এবং R বাটন এক সাথে চাপুন।
• একটা বক্স ওপেন হবে,যাকে আমরা বলি রান বক্স।
• রান বক্সে যেখানে সার্চ অপশনে কার্সরটি লাফালাফি করছে সেখানে কলিগের কম্পিউটারের আইপি এড্রেসটি দিন। ও হ্যা, আইপি এড্রেস দেবার সময় অবশ্যই শুরুতে ব্যাক স্ল্যাশ দিবেন দুটো।যেমন, ধরুন, কলিগের পিসির আইপি এড্রেস 190.190.190.29 তাহলে আপনি রান বক্সে লিখেন \\190.190.190.29।
• এবার দেখেন আরেকটি বক্স ওপেন হবে।যেখানে ইউজার এবং পাসওয়ার্ড চাইবে। সেই বক্সে কলিগের পিসির ইউজার নেইম এবং পাসওয়ার্ডটি দিন। (যদি সন্দেহপ্রবণ এবং খুতখুতে টাইপ কলিগ হয় এবং তার পাসওয়ার্ড আপনাকে জানাতে না চায় তো আপনি তাকে নিজ হাতে ইউজার এবং পাসওয়ার্ড দিতে অনুরোধ করুন।)

গুগল ড্রাইভের ব্যবহার শিখুন ৫ মিনিটে

• এবার দেখুন, তার কম্পিউটারের প্রিন্টারটি দেখা যাচ্ছে। আপনি সেই প্রিন্টারের আইকনে রাইট বাটন ক্লিক করেন, এরপর অপশন থেকে কানেক্ট বাটনটি চাপেন।
• ঝিম ধরে তাকিয়ে থাকেন, কয়েক সেকেন্ড চাকাটা ঘুরাঘুরি করে আপসে নাই হয়ে যাবে। মানে শেয়ার ইজ ওকে।
• এবার আপনার কম্পিউটারে স্টার্ট বাটন (উইন্ডজ বাটন) চেপে সেখান থেকে Printer & Fax এ ক্লিক করেন। দেখেন, পাশের কলিগের প্রিন্টারের আইকনটি তার আইপি এড্রেস সহ দেখাচ্ছে। এবার সেটাতে রাইট বাটন ক্লিক করে Set as default printer করে দিন।
• এবার আরামসে ধুমায়া প্রিন্ট দেন।

শর্টকাট ভাইরাস ১০ সেকেন্ডে রিমুভ করার ভিডিওটি দেখুন  

কখনো সখনো এই সব করার পর যখন কানেক্ট দিতে যাবেন তখন দেখবেন কানেক্ট হতে চাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয় দেখতে পারেন।

• দুটো পিসিই রিস্টার্ট দেন।হয়ে যাবে।
যদি না হয় তাহলে
• পাশের কলিগের পিসিতে কোন এন্টি ভাইরাস দেয়া আছে কি না দেখেন। যদি থাকে তো সাময়িক সময়ের জন্য এন্টিভাইরাসের ফায়ারওয়েল টা অফ করে দেন।
• এবার আবার রিস্টার্ট দিয়ে কানেক্ট দেন।

লক্ষ্যণীয় : এভাবে শেয়ারে প্রিন্ট দেয়ার সময় অবশ্যই দুটো কম্পিউটারই অন থাকতে হবে।

যদি কোন ধাপ বুঝতে সমস্যা হয় তাহলে প্রশ্ন করতে পারেন এই বিষয়ে।
সব কাজ শেষ? এবার ধুমায়া প্রিন্ট দিতে থাকেন আর দুইটা, চারটা, দশটা কম্পিউটার থেকে মাত্র একটা প্রিন্টার দিয়ে প্রিন্ট দিয়ে খরচা বাঁচান বহুগুণ।
সবাই ভাল থাকবেন।

আজ এ পর্যন্তই। ভুল-ভ্রান্তি থাকলে অবশ্যই গঠনমূলক সমালোচনা ও সংশোধনী আশা করছি।

আশা করি এই লিখাটি টি থেকে আপনি উপকৃত হয়েছেন।

এরকম আরও তথ্য পেতে  “শখের স্কুলের” সাথেই থাকুন।

লাইক দিন “শখের স্কুলের”  ফেসবুক পেজে

জয়েন করুন“শখের স্কুলের”  ফেসবুক গ্রুপে

সাবস্ক্রাইব করুন “শখের স্কুলের”  ইউটিউব চ্যানেল

টিউনারকে ফলো করুন>> 

অসংখ্য ধন্যবাদ।আল্লাহ হাফিজ

জ্ঞান ভাগাভাগিতে কোনো কার্পণ্য নয়! বাংলা ভাষার কনটেন্ট সমৃদ্ধ করার এই উদ্যোগকে উৎসাহিত করতে শেয়ার করুন। 

 

Similar Posts:

    None Found

Facebook Comments

সাধারণ জীবন যাপন পছন্দ, তবে স্ট্রাগল এলে জড়িয়ে নিই। প্রশ্ন করতে এবং উত্তর পেতে ভালবাসি, ভালবাসি প্রশ্ন পেতেও। শিখি, অন্যকে বিতরণ করে আনন্দ পাই। অহেতুক তর্ক ভাললাগে না, জানার জন্য নিজের বিশ্বাসের উল্টো প্রশ্ন করি।

One Reply to “প্রীন্টার শেয়ারিং সিস্টেম”

  1. আপনার এই শ্রমের উত্তম প্রতিদান পান , এটাই কামনা । এগিয়ে যান ভাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.