এদেশীয় শিক্ষাব্যাবস্থার বিপক্ষে কথা বলার মতো যুক্তি, বুদ্ধি বা সাহস কোনোটাই আপাতত আমার নেই।
তবে আমার ক্ষুদ্র বুদ্ধি মনে করে যে , পরীক্ষার চাপ (প্যারা) মানুষের চিন্তা -চেতনা এবং বুদ্ধির বিকাশের প্রধান অন্তরায়।
প্রত্যেক লেবেলের ছাত্রদের জন্যই কথাটা সমান ভাবে সঠিক বলে মনে করি।
আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি , এই স্তর সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা হলো, যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তভাবে জ্ঞান অন্বেষনের জায়গা সেহেতু এখানকার ছাত্রদের বাস্তবমুখর বা প্রাক্টিক্যাল টাইপের শিক্ষার বাস্তবায়ন করা উচিৎ শতকরা নব্বই ভাগ।
কিন্তু দু বা তিন মাস পরপর বড়ধরনের পরীক্ষার চাপ গবেষনাধর্মী শিক্ষা থেকে ছাত্রদের দুরে রাখে।
আমার মনে হয় ,এজন্যই আমাদের উপমহাদেশে বিখ্যাত বিজ্ঞানী এবং গবেষক কম।বিখ্যাত বললাম এই কারনে যে, এখনকার সময়ে বিজ্ঞানী হওয়া তুলনামূলক অনেক সহজ।
যাই হোক, এবার আসি প্রাইমারি বা হাইস্কুল লেভেলের কথায়।
আমি একটা স্টুডেন্ট পড়াই ক্লাস ওয়ান এর।
মিসাক একাডেমীতে পড়ে।
দেড়মাস অন্তর পরীক্ষা।
পরীক্ষার ১৫দিন আগে স্কুল থেকে শীট দেয়।
পেছনে ছোট করে লেখা,”শীট মূল বই এর বিকল্প নয়।ভালো রেজাল্টের জন্য শীটের পাশাপাশি টেক্সট বই পড়ো”
অথচ পরীক্ষার শতভাগ প্রশ্ন ওই ৫পৃষ্ঠার শীট থেকেই দেয়।
আর একটা স্টুডেন্ট ক্লাস ফাইভের।
স্কুল থেকে প্তি মাসে মাসিক পরীক্ষা,দু মাস অন্তর মডেল টেস্ট,বোর্ড থেকে দুটো মডেলটেস্ট এবং পি,এস,সি পরীক্ষা।
সুতরাং যা হবার তাই।এখানেও শীটের ছড়াছড়ি।
স্টুডেন্টের মায়ের কথায় আরো স্পষ্ট হবে,”স্যার আপনি শুধু শীটের অঙ্ক গুলো করিয়ে দেবেন,ইংরেজির মডেলটেস্ট গুলো পড়াবেন,বাদবাকি আমি দেখবো।”অথচ ছাত্রী আমার সিম্পল যোগ বিয়োগ পারে না।
যাই হোক,আমার মতো নগন্য- জঘন্য মানুষ লিখে লিখে বুড়ো আঙুল অবশ করলে কারোর কানেই যাবে না তবুও সিনিয়র,বন্ধু সহ সম্মানিত কিছু শিক্ষক কে ট্যাগ করলাম মতামত জানার জন্যে।
আর বশেষে ,যদি আমার কাছে এই অবস্থা থেকে উত্তরনের পথ জানতে চাওয়া হয় তো বলবো, পরীক্ষা গুলোকে ছোট পরিসরে নিয়ে আসা উচিৎ। অনেকটা আমাদের ভার্সিটির ল্যাব এক্সাম গুলোর মতো।”
অর্থাৎ,গোটা ব্যাবস্থাটাকে পুস্তকমুখর না করে বাস্তবমুখর করা উচিৎ।
ধৈর্য ধরে এতখানি অগোছালো লেখা পড়ার জন্য ধন্যবাদ।
কারো কাছে আজাইরা প্যাচাল মনে হলে মেসেজ করে মাত্র একটা গালি দিয়েন।(একটার বেশি দিলে খবর আছে)।
আবারো বলি, কথাগুলো একান্তই আমার নিজস্ব অভিমত।

Similar Posts:

    None Found

Facebook Comments

খুবই সাধারণ সাধাসিধে একজন মানুষ। টেকনোলজি ভালবাসি , ভালবাসি নতুন কিছু শিখতে। আর বিশ্বাস করি শেখানটাই শেখার সবথেকে ভালো মাধ্যম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.